ঢাকা ১০:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রীকে কলকাতার ইন্দো বাংলা প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা

Spread the love

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী অধ্যক্ষ মো. মহিববুর রহমান এমপিকে সংবর্ধনা প্রদান করলো কলকাতার ইন্দোবাংলা প্রেসক্লাব। শনিবার রাতে মধ্য কলকাতার অভিজাত স্প্রিং ক্লাবে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় প্রতিমন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত করেন ইন্দোবাংলা প্রেসক্লাবের মেন্টর ও অনলাইন নিউজপোর্টাল ভয়েস অব কলকাতার সম্পাদক মি: দীপক মূখার্জী, ভারতের এটিএন বাংলা, নিউজ’র পরিচালক ও ইন্দোবাংলা প্রেসক্লাবের মেন্টর মি: তপন রায়, ইন্দোবাংলা প্রেসক্লাবের মুখপাত্র ও নিউজ ২৪ এর কলকাতা প্রতিনিধি ভাস্কর সরদার। অনুষ্ঠানে ইন্দোবাংলা প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য মো. মহিববুর রহমান এমপিকে উত্তরীয় ও সন্মানসূচক ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়। এর আগে শনিবার সন্ধ্যা ৬ টা ৩০ মিনিটে মধ্যে কলকাতার ঐতিহ্যবাহী স্প্রিং ক্লাবে বেঙ্গল ফিল্ম এন্ড টেলিভিশন চেম্বার অব কমার্সের উদ্যোগে ষষ্ঠ বিএফটিসিসি চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান ও নবম বেঙ্গল ইন্টারন্যাশানাল শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে গুনীজনদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন প্রতিমন্ত্রী মহিববুর রহমান। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বিশিষ্ট প্রয়াত চলচ্চিত্র শিল্পী নায়ক রাজ রাজ্জাক নামাঙ্কিত, লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড পুরস্কার প্রদান করা হয়।

এবছর এই সম্মানীয় পুরস্কার প্রদান করা হয় বাংলাদেশ এর বিশিষ্ট অভিনেতা আবুল হায়াত ও বিশিষ্ট অভিনেত্রী আনোয়ারা বেগমকে। নবম বেঙ্গল ইন্টারন্যাশানাল শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে বেস্ট শর্ট ফিল্ম বিভাগে পুরস্কৃত হন পরিচালক তথাগত ভৌমিকের “টারমাইট” চলচ্চিত্রটি। এবং দ্বিতীয় বেস্ট শর্ট ফিল্ম বিভাগে পুরস্কৃত হয়, পরিচালক প্রদীপ কুরবাহের “পাথ” চলচ্চিত্রটি।

বেস্ট ডকুমেন্টটারি বিভাগে পুরস্কৃত হয়, পরিচালক শিবম সিং রাজপুতের “লাদাখ ৪৭০” চলচ্চিত্রটি এবং দ্বিতীয় বেস্ট ডকুমেন্টটারি বিভাগে পুরস্কৃত হয়, পরিচালক রাজকুমার প্রজাপতি রুচিকা নেগির “ ইন বিটুইন আস” চলচ্চিত্রটি। এছাড়া, বিএফটিসিসি অ্যাওয়ার্ড ২০২৪, চলচ্চিত্র বিভাগে, দেবোকি বসুকে লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড পুরস্কার প্রদান করা হয়, বিশিষ্ট চলচ্চিত্র পরিচালক প্রভাত রায়কে কালিস মুখার্জি নামাঙ্কিত লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কার প্রদান করা হয়।

বিশিষ্ট চলচ্চিত্র সাংবাদিক ও চলচ্চিত্র সমালোচক চন্ডী মুখার্জি এ বছর হীরালাল সেন লাইভ অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কার গ্রহন করেন। বিশিষ্ট নাট্যকার ও চলচ্চিত্র অভিনেতা মনোজ মিত্র, বিএম সরকার লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কার পান বিশিষ্ট প্রযোজক পূর্ণিমা দত্ত। এর আগে শুক্রবার বিকেলে দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী মো. মহিবুর রহমান কলকাতার ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নন্দনে ভারতের প্রখ্যাত পরিচালক শ্যাম বেনেগাল পরিচালিত ‘মুজিব: একটি জাতির রুপকার’ চলচ্চিত্র প্রদর্শন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কলকাতার শিক্ষাবিদ ও রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক পবিত্র সরকার, সঙ্গীত শিল্পী শ্রীকান্ত আচার্য, সাংবাদিক সুখ রঞ্জন দাস গুপ্ত, দিলীপ চক্রবর্ত্তী প্রমূখ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী মহিববুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশ ও ভারতের ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্বের প্রতীক এই চলচ্চিত্রটি বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে নির্মান করা হয়েছে।

২০১৭ সালের এপ্রিলে নয়াদিল্লীর হায়দ্রাবাদে একটি অনুণ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর জীবনী নিয়ে বায়োপিক তৈরীর পরিকল্পনা যৌথভাবে ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এরকম একটি দূরদর্শী সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য বাংলাদেশের মানুষ তাঁদের প্রতি চির কৃতজ্ঞ থাকবে। ছবিটিতে বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন, তাঁর বেড়ে ওঠা এবং বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে তাঁর অংশগ্রহন ও নেতৃত্ব দেওয়া সহ ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ন অধ্যায়গুলো তুলে ধরা হয়েছে।

জনপ্রিয় সংবাদ

দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রীকে কলকাতার ইন্দো বাংলা প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা

আপডেট সময় : ০৫:৪৪:১০ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ জুন ২০২৪
Spread the love

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী অধ্যক্ষ মো. মহিববুর রহমান এমপিকে সংবর্ধনা প্রদান করলো কলকাতার ইন্দোবাংলা প্রেসক্লাব। শনিবার রাতে মধ্য কলকাতার অভিজাত স্প্রিং ক্লাবে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় প্রতিমন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত করেন ইন্দোবাংলা প্রেসক্লাবের মেন্টর ও অনলাইন নিউজপোর্টাল ভয়েস অব কলকাতার সম্পাদক মি: দীপক মূখার্জী, ভারতের এটিএন বাংলা, নিউজ’র পরিচালক ও ইন্দোবাংলা প্রেসক্লাবের মেন্টর মি: তপন রায়, ইন্দোবাংলা প্রেসক্লাবের মুখপাত্র ও নিউজ ২৪ এর কলকাতা প্রতিনিধি ভাস্কর সরদার। অনুষ্ঠানে ইন্দোবাংলা প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য মো. মহিববুর রহমান এমপিকে উত্তরীয় ও সন্মানসূচক ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়। এর আগে শনিবার সন্ধ্যা ৬ টা ৩০ মিনিটে মধ্যে কলকাতার ঐতিহ্যবাহী স্প্রিং ক্লাবে বেঙ্গল ফিল্ম এন্ড টেলিভিশন চেম্বার অব কমার্সের উদ্যোগে ষষ্ঠ বিএফটিসিসি চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান ও নবম বেঙ্গল ইন্টারন্যাশানাল শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে গুনীজনদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন প্রতিমন্ত্রী মহিববুর রহমান। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বিশিষ্ট প্রয়াত চলচ্চিত্র শিল্পী নায়ক রাজ রাজ্জাক নামাঙ্কিত, লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড পুরস্কার প্রদান করা হয়।

এবছর এই সম্মানীয় পুরস্কার প্রদান করা হয় বাংলাদেশ এর বিশিষ্ট অভিনেতা আবুল হায়াত ও বিশিষ্ট অভিনেত্রী আনোয়ারা বেগমকে। নবম বেঙ্গল ইন্টারন্যাশানাল শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে বেস্ট শর্ট ফিল্ম বিভাগে পুরস্কৃত হন পরিচালক তথাগত ভৌমিকের “টারমাইট” চলচ্চিত্রটি। এবং দ্বিতীয় বেস্ট শর্ট ফিল্ম বিভাগে পুরস্কৃত হয়, পরিচালক প্রদীপ কুরবাহের “পাথ” চলচ্চিত্রটি।

বেস্ট ডকুমেন্টটারি বিভাগে পুরস্কৃত হয়, পরিচালক শিবম সিং রাজপুতের “লাদাখ ৪৭০” চলচ্চিত্রটি এবং দ্বিতীয় বেস্ট ডকুমেন্টটারি বিভাগে পুরস্কৃত হয়, পরিচালক রাজকুমার প্রজাপতি রুচিকা নেগির “ ইন বিটুইন আস” চলচ্চিত্রটি। এছাড়া, বিএফটিসিসি অ্যাওয়ার্ড ২০২৪, চলচ্চিত্র বিভাগে, দেবোকি বসুকে লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড পুরস্কার প্রদান করা হয়, বিশিষ্ট চলচ্চিত্র পরিচালক প্রভাত রায়কে কালিস মুখার্জি নামাঙ্কিত লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কার প্রদান করা হয়।

বিশিষ্ট চলচ্চিত্র সাংবাদিক ও চলচ্চিত্র সমালোচক চন্ডী মুখার্জি এ বছর হীরালাল সেন লাইভ অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কার গ্রহন করেন। বিশিষ্ট নাট্যকার ও চলচ্চিত্র অভিনেতা মনোজ মিত্র, বিএম সরকার লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কার পান বিশিষ্ট প্রযোজক পূর্ণিমা দত্ত। এর আগে শুক্রবার বিকেলে দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী মো. মহিবুর রহমান কলকাতার ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নন্দনে ভারতের প্রখ্যাত পরিচালক শ্যাম বেনেগাল পরিচালিত ‘মুজিব: একটি জাতির রুপকার’ চলচ্চিত্র প্রদর্শন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কলকাতার শিক্ষাবিদ ও রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক পবিত্র সরকার, সঙ্গীত শিল্পী শ্রীকান্ত আচার্য, সাংবাদিক সুখ রঞ্জন দাস গুপ্ত, দিলীপ চক্রবর্ত্তী প্রমূখ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী মহিববুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশ ও ভারতের ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্বের প্রতীক এই চলচ্চিত্রটি বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে নির্মান করা হয়েছে।

২০১৭ সালের এপ্রিলে নয়াদিল্লীর হায়দ্রাবাদে একটি অনুণ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর জীবনী নিয়ে বায়োপিক তৈরীর পরিকল্পনা যৌথভাবে ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এরকম একটি দূরদর্শী সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য বাংলাদেশের মানুষ তাঁদের প্রতি চির কৃতজ্ঞ থাকবে। ছবিটিতে বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন, তাঁর বেড়ে ওঠা এবং বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে তাঁর অংশগ্রহন ও নেতৃত্ব দেওয়া সহ ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ন অধ্যায়গুলো তুলে ধরা হয়েছে।