ঢাকা ১০:২৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চবির ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ সায়েন্স বিভাগে ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত

Spread the love

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ সায়েন্স বিভাগে “Body Language Analysis in Criminal Investigation” শীর্ষক ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিভাগের সভাপতি মো. সাখাওয়াত হোসেনের সভাপতিত্বে সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর সিরাজ উদ দৌল্লাহ প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। এছাড়া বিভাগের শিক্ষক ফারজানা রহমান অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদান করেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বিভাগের ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী জান্নাতুল মাওয়া মিথিলা। ওয়ার্কশপে মূল আলোচনা করেন মো. মিরাজ হোসেন।

প্রধান অতিথির আলোচনায় প্রফেসর সিরাজ উল্লেখ করেন; সমাজে অপরাধ থাকবেই। সে কারণেই সমাজবিজ্ঞানের আলোচনার মূল বিষয়বস্তু হচ্ছে মানুষ এবং সমাজ। অপরাধের প্রত্যেকটি বিষয়কে বিজ্ঞানভিত্তিক আলোচনার মাধ্যমে বিভাগের যৌক্তিকতাকে তুলে ধরতে হবে শিক্ষার্থীদের। অপরাধের কার্যকারণ সম্পর্ক নির্ণয়ে অপরাধবিজ্ঞানীদের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে হবে।

মানুষের মুখমন্ডল, অন্যান্য অঙ্গ বিকৃত প্রতিশ্রুত থেকে মানুষের অপরাধ প্রবণতা সম্পর্কে অবগত হওয়া যায়। অপরাধবিজ্ঞানী হিসেবে অপরাধকে বিশ্লেষণে এ বিভাগের শিক্ষার্থীদের ব্যতিক্রম হতে হবে, নতুনত্ব আনয়ন করতে হবে। অপরাধের ধারাবাহিক বিশ্লেষণ থেকে অপরাধকে বোঝার চেষ্টা করতে হবে; বিশেষ করে একজন অপরাধীর সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ওরিয়েন্টেশনকে বোঝার চেষ্টা করতে হবে। সময় এবং পরিস্থিতি বিবেচনায় অপরাধীকে চিহ্নিত করবার পাশাপাশি সুশৃঙ্খল সমাজ প্রতিষ্ঠায় অপরাধবিজ্ঞানীদের ভূমিকা রাখতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে মো. সাখাওয়াত হোসেন বলেন, অপরাধ তদন্তের প্রেক্ষিতে অপরাধ রিপোর্টিং এর পরে মূলত ক্রিমিনাল জাস্টিস এর মূল কাজ শুরু হয়। অপরাধ রিপোর্টিং এর পর তদন্তকারী অফিসারের প্রাথমিক কাজ শুরু হয়। মূলত একটি ঘটনার সত্যানুসন্ধানের পরিপ্রেক্ষিতে অপরাধ তদন্ত অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। আর অপরাধ তদন্তের টুলস হিসেবে ফরেনসিক অ্যানালাইসিস খুবই জরুরী।

অনুষ্ঠানের মূল বক্তা ফরেনসিকে শিক্ষার্থীদের ক্যারিয়ার গঠনের বিস্তারিত সুযোগ তুলে ধরেন। বিশেষ করে শারীরিক অঙ্গভঙ্গির কসরত নিয়ে একজন ব্যক্তিকে মূল্যায়ণ করার নানাবিধ পদ্ধতি ও কৌশল নিয়ে আলোচনা করেন। প্রশ্নোত্তর সেশনের মধ্য দিয়ে শিক্ষার্থীদের প্রাণোচ্ছল অংশগ্রহণের মাধ্যমে আয়োজনের সমাপ্তি ঘোষণা হয়।

জনপ্রিয় সংবাদ

চবির ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ সায়েন্স বিভাগে ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত

আপডেট সময় : ০৬:০১:১৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪
Spread the love

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ সায়েন্স বিভাগে “Body Language Analysis in Criminal Investigation” শীর্ষক ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিভাগের সভাপতি মো. সাখাওয়াত হোসেনের সভাপতিত্বে সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর সিরাজ উদ দৌল্লাহ প্রধান অতিথি হিসেবে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। এছাড়া বিভাগের শিক্ষক ফারজানা রহমান অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদান করেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বিভাগের ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী জান্নাতুল মাওয়া মিথিলা। ওয়ার্কশপে মূল আলোচনা করেন মো. মিরাজ হোসেন।

প্রধান অতিথির আলোচনায় প্রফেসর সিরাজ উল্লেখ করেন; সমাজে অপরাধ থাকবেই। সে কারণেই সমাজবিজ্ঞানের আলোচনার মূল বিষয়বস্তু হচ্ছে মানুষ এবং সমাজ। অপরাধের প্রত্যেকটি বিষয়কে বিজ্ঞানভিত্তিক আলোচনার মাধ্যমে বিভাগের যৌক্তিকতাকে তুলে ধরতে হবে শিক্ষার্থীদের। অপরাধের কার্যকারণ সম্পর্ক নির্ণয়ে অপরাধবিজ্ঞানীদের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে হবে।

মানুষের মুখমন্ডল, অন্যান্য অঙ্গ বিকৃত প্রতিশ্রুত থেকে মানুষের অপরাধ প্রবণতা সম্পর্কে অবগত হওয়া যায়। অপরাধবিজ্ঞানী হিসেবে অপরাধকে বিশ্লেষণে এ বিভাগের শিক্ষার্থীদের ব্যতিক্রম হতে হবে, নতুনত্ব আনয়ন করতে হবে। অপরাধের ধারাবাহিক বিশ্লেষণ থেকে অপরাধকে বোঝার চেষ্টা করতে হবে; বিশেষ করে একজন অপরাধীর সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ওরিয়েন্টেশনকে বোঝার চেষ্টা করতে হবে। সময় এবং পরিস্থিতি বিবেচনায় অপরাধীকে চিহ্নিত করবার পাশাপাশি সুশৃঙ্খল সমাজ প্রতিষ্ঠায় অপরাধবিজ্ঞানীদের ভূমিকা রাখতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে মো. সাখাওয়াত হোসেন বলেন, অপরাধ তদন্তের প্রেক্ষিতে অপরাধ রিপোর্টিং এর পরে মূলত ক্রিমিনাল জাস্টিস এর মূল কাজ শুরু হয়। অপরাধ রিপোর্টিং এর পর তদন্তকারী অফিসারের প্রাথমিক কাজ শুরু হয়। মূলত একটি ঘটনার সত্যানুসন্ধানের পরিপ্রেক্ষিতে অপরাধ তদন্ত অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। আর অপরাধ তদন্তের টুলস হিসেবে ফরেনসিক অ্যানালাইসিস খুবই জরুরী।

অনুষ্ঠানের মূল বক্তা ফরেনসিকে শিক্ষার্থীদের ক্যারিয়ার গঠনের বিস্তারিত সুযোগ তুলে ধরেন। বিশেষ করে শারীরিক অঙ্গভঙ্গির কসরত নিয়ে একজন ব্যক্তিকে মূল্যায়ণ করার নানাবিধ পদ্ধতি ও কৌশল নিয়ে আলোচনা করেন। প্রশ্নোত্তর সেশনের মধ্য দিয়ে শিক্ষার্থীদের প্রাণোচ্ছল অংশগ্রহণের মাধ্যমে আয়োজনের সমাপ্তি ঘোষণা হয়।