ঢাকা ০৯:৪৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সর্বজনীন পেনশন নীতিমালা প্রত্যাহারের দাবি ইবি শিক্ষক সমিতির

Spread the love

সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয় জারিকৃত সর্বজনীন পেনশন বিষয়ক প্রজ্ঞাপনে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্ত না করায় তা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শিক্ষক সমিতি।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মামুনুর রহমান স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নেতারা।

বিবৃতিতে তারা বলেন, গত ১৩ মার্চ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারিকৃত একটি বৈষম্যমূলক প্রজ্ঞাপনে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় তথা বাংলাদেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকসমাজ যারপরনাই হতাশ ও সংক্ষুব্ধ। সর্বজনীন নাম দেয়া পেনশন স্কিম সর্বজনীন না করে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য এরূপ বিশেষ বৈষম্যমূলক পেনশন ব্যবস্থা চালু করার তীব্র বিরোধিতা করছে ইবি শিক্ষক সমিতি।

তারা আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার যাত্রাপথে জাতির মেধাবী সন্তান হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকমণ্ডলী যখন নিষ্ঠাবান রয়েছেন তখন গত ১৩ মার্চ অর্থমন্ত্রণালয় কর্তৃক বৈষম্যমূলক পেনশন বিষয়ক প্রজ্ঞাপন জারি আমাদের হতাশ করেছে। ইবি শিক্ষক সমিতি মনে করে ২০৪১ সাল অবধি উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির জন্যই এ ধরনের একপেশে নীতি অনুসরণ করা হয়েছে। এটি বাস্তবায়িত হলে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকগন ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে এবং এ পেশা থেকে মেধাবীরা মুখ ফিরিয়ে নেবে। সর্বোপরি, ঘোষিত প্রজ্ঞাপন শিক্ষকসমাজের জন্য অবমাননাকর।

অতএব, ইবি শিক্ষক সমিতি বৈষম্যমূলক প্রজ্ঞাপনটি তীব্রভাবে প্রত্যাখান করছে এবং অনতিবিলম্বে তা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছে।

জনপ্রিয় সংবাদ

সর্বজনীন পেনশন নীতিমালা প্রত্যাহারের দাবি ইবি শিক্ষক সমিতির

আপডেট সময় : ০৩:০৩:১৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ মার্চ ২০২৪
Spread the love

সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয় জারিকৃত সর্বজনীন পেনশন বিষয়ক প্রজ্ঞাপনে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্ত না করায় তা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শিক্ষক সমিতি।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মামুনুর রহমান স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নেতারা।

বিবৃতিতে তারা বলেন, গত ১৩ মার্চ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারিকৃত একটি বৈষম্যমূলক প্রজ্ঞাপনে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় তথা বাংলাদেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকসমাজ যারপরনাই হতাশ ও সংক্ষুব্ধ। সর্বজনীন নাম দেয়া পেনশন স্কিম সর্বজনীন না করে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য এরূপ বিশেষ বৈষম্যমূলক পেনশন ব্যবস্থা চালু করার তীব্র বিরোধিতা করছে ইবি শিক্ষক সমিতি।

তারা আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার যাত্রাপথে জাতির মেধাবী সন্তান হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকমণ্ডলী যখন নিষ্ঠাবান রয়েছেন তখন গত ১৩ মার্চ অর্থমন্ত্রণালয় কর্তৃক বৈষম্যমূলক পেনশন বিষয়ক প্রজ্ঞাপন জারি আমাদের হতাশ করেছে। ইবি শিক্ষক সমিতি মনে করে ২০৪১ সাল অবধি উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির জন্যই এ ধরনের একপেশে নীতি অনুসরণ করা হয়েছে। এটি বাস্তবায়িত হলে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকগন ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে এবং এ পেশা থেকে মেধাবীরা মুখ ফিরিয়ে নেবে। সর্বোপরি, ঘোষিত প্রজ্ঞাপন শিক্ষকসমাজের জন্য অবমাননাকর।

অতএব, ইবি শিক্ষক সমিতি বৈষম্যমূলক প্রজ্ঞাপনটি তীব্রভাবে প্রত্যাখান করছে এবং অনতিবিলম্বে তা প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছে।